Home / Android Zone / শাওমি ফোনে চায়না রম থেকে গ্লোবাল রমে যেভাবে যাবেন

শাওমি ফোনে চায়না রম থেকে গ্লোবাল রমে যেভাবে যাবেন

আস্সালামুয়ালাইকুম বন্ধুরা । Begiz’এ সবাইকে স্বাগতম । আজ আপনাদের দেখাবো শাওমি ফোনে চায়না রম থেকে গ্লোবাল রমে যেভাবে যাবেন । তো চলুন শুরু করা যাক ।

শাওমির একই মডেলের ফোন আপনি চীন থেকে কিনলে সেটাতে চায়না রম ইন্সটল করা অবস্থায় পাবেন। অন্যদিকে বাংলাদেশে শাওমির অফিশিয়াল ডিস্ট্রিবিউটরদের কাছ থেকে কিনলে আপনি গ্লোবাল রম ইন্সটল করা অবস্থায় পাবেন। শাওমি কোন নতুন ফোন সাধারণত প্রথমে চীনে লঞ্চ করে। পাশাপাশি চীনে শাওমি ফোনের দাম কম হওয়াতে বাংলাদেশের অনেক দোকানদার সরাসরি চীন থেকে ফোন এনে বিক্রি করেন। স্বভাবতই সেসব ফোনে চায়না রম ইন্সটল করা থাকে।

যদিও চায়না রম ও গ্লোবাল রমে গুগল সার্ভিস ব্যতিত বড় কোন পার্থক্য নেই, কিন্তু তার পরেও অনেক গ্রাহক গ্লোবাল রমেই বেশি স্বাচ্ছন্দবোধ করেন। আপনি চাইলে এই টিউটোরিয়ালটি ফলো করে চায়না রমযুক্ত ফোনে গ্লোবাল রম ইন্সটল করতে পারবেন। একইভাবে গ্লোবাল রম থেকেও চায়না রমে যাওয়া সম্ভব।

সতর্কতাঃ এই টিউটোরিয়ালটি তাদের জন্য যারা ফোনের ডেভেলপমেন্ট নিয়ে বেসিক ধারনা রাখেন। রম চেঞ্জ করার মতো এই ধরনের কাজে একটু এদিক সেদিক হলে আপনার ফোনটি হার্ডব্রিক কিংবা ডেড হয়ে যেতে পারে যা আর ঠিক নাও করা যেতে পারে। তাই এই টিউটোরিয়ালটি ফলো করে নিজের ফোনে রম চেঞ্জ করার কাজটি নিজ দায়িত্বে করবেন। এই টিউটোরিয়াল ফলো করে ফোনের কোন ক্ষতি হলে লেখক কিংবা টেকবাজ কর্তৃপক্ষ কোনভাবেই দায়ী থাকবে না।

পুরো প্রসেসটি শুরু করার আগে আপনার ফোনের সব ডেটা অবশ্যই ব্যাকআপ করে রাখবেন। কারণ প্রসেসটিতে আপনার সব ডেটা মুছে যাবে।

প্রথম ধাপ – বুটলোডার আনলকঃ

আপনার ফোনটিকে চালায় এন্ড্রয়েড নামক অপারেটিং সিস্টেম। আর পাওয়ার বাটন অন করার সাথে সাথে অপারেটিং সিস্টেমকে চালু করে যে ছোট্ট সফটওয়ার তাকে বলে বুটলোডার। এটা অনেকটা ফোনের “মেইন গেইট” এর মতো। সাধারণত ফোন কোম্পানিগুলো বুটলোডার লক করে দেন যেন সাধারণ ব্যবহারকারীরা ভুলভাল রম ইন্সটল করে ফোনের ক্ষতি না করতে পারে।

তবে যারা একটু এডভান্সড লেভেলের ইউজার এবং ফোনের রম পরিবর্তন করতে চান তারা চাইলে বুটলোডার আনলক করে সেটা করতে পারেন।

শাওমি ফোনে বুটলোডার আনলক করতে আপনাকে সেটার জন্য শাওমির ওয়েবসাইটে অনলাইনে আবেদন করতে হবে। আবেদন বলতে দরখাস্ত লেখা বা ঐরকম কিছু নয়।

  • প্রথমেই আপনার ফোনে আপনার মি একাউন্ট দিয়ে লগইন করে নিবেন (যদি ইতিমধ্যে সেটা করে না থাকেন।)
  • এবার ফোনের সেটিংস থেকে About Phone বা My Device অপশনে যাবেন। এখানে আপনি MIUI Version বা Bulid Number লেখার উপর ৭ বার ট্যাপ করবেন। এবার আপনার ফোনে ডেভেলপার অপশন এনাবল হয়েছে।
  • এখন আপনি আবার ফোনের সেটিংস থেকে এডিশনাল সেটিংস অপশনে গিয়ে Developer Options নামে একটি অতিরিক্ত অপশন পাবেন। এর ভিতর ঢুকে OEM Unlocking এবং USB Debugging অন করে দিন।
  • এবার Mi Unlock Status এ গেলে নিচের মতো স্ক্রিন দেখতে পাবেন। সতর্কবার্তা পড়ে Add Account অপশনটিতে ক্লিক করুন। আগেই বলে রাখি এই ধাপে কিন্তু আপনার ফোনে অবশ্যই ভালো স্পিড এর ইন্টারনেট সংযোগ থাকতে হবে। আর বুটলোডার আনলক করার পর শাওমির ডিফল্ট ফাইন্ড মাই ডিভাইস সুবিধাটি আপনি আর পাবেন না।
  • অতঃপর আপনার উইন্ডোজ পিসি থেকে en.miui.com/unlock সাইটটি ভিজিট করে মি আনলক টুল নামক সফটওয়ারটি পিসিতে ইন্সটল করুন।
  • এবার পিসির ইন্টারনেট কানেকশন অন করে আনলক টুলে ঢুকে আপনার মি একাউন্ট দিয়ে লগইন করুন। (ফোনে যে মি একাউন্ট দিয়ে লগইন করা সেটা।)
  • এবার আপনার ফোনটি সুইচ অফ করুন। অতঃপর পাওয়ার ও ভলিউম ডাউন বাটনটি একসাথে চেপে ধরুন ১০ সেকেন্ডের জন্য। দেখবেন আপনার ফোনটি ফাস্টবুট নামক একটি মোডে চালু হয়েছে।
  • এবার আপনার ফোনটি পিসির সাথে ইউএসবি ক্যাবল দিয়ে যুক্ত করুন। এডিবি ড্রাইভার ইন্সটল হবে। না হলে ম্যানুয়ালি করে নিতে হবে।
  • এবার মি আনলক টুলে আনলক বাটন প্রেস করলে আনলকিং প্রসেস শুরু হবে। আনলকিং প্রসেসে একেকজনের আনলক হতে একেক সময় লাগতে পারে। সমস্যা নেই, আপনি আপনার ফোনটি চালু করে স্বাভাবিকভাবেই চালাতে পারবেন। শুধু ফোন থেকে মি একাউন্টটি রিমুভ করবেন না।

আপনার ফোনটি সফলভাবে আনলক করার পর ফোন অন করার সময় শাওমির লোগোর নিচের দিকে একটি খোলা তালার চিহ্ন এবং “আনলকড” লেখা দেখতে পাবেন। তার মানে আপনার ফোনের বুটলোডার সফলভাবে আনলক হয়েছে। সবার ক্ষেত্রে পুরো প্রসেসটি এত সহজভাবে নাও হতে পারে। সেক্ষেত্রে পুনরায় চেষ্টা করতে পারেন।

দ্বিতীয় ধাপ – রম ফ্ল্যাশঃ

আপনার ফোনের বুটলোডার যেহেতু আনলক করা হয়ে গেছে সেহেতু আপনি এবার ফোনে যে কোন  মিইউআই রম ইন্সটল করতে পারবেন। গ্লোবাল রম, চায়না রম কিংবা ডেভেলপার রম। তবে যদি অন্য কোন কাস্টম রম ইন্সটল করতে চান তাহলে কাস্টম রিকভারি ইন্সটল করা লাগবে। সেদিকে আপাতত না যাওয়াই ভালো।

  • প্রথমেই এই লিঙ্ক থেকে মি ফ্ল্যাশ টুল নামক টুলটি পিসিতে ইন্সটল করে নিন।
  • এবার আপনার ফোনের জন্য কাঙ্ক্ষিত রমটির “ফাস্টবুট ভার্সন” মিইউআই ফোরাম থেকে খুঁজে ডাউনলোড করে নিন। এই সাইটে মোটামুটি সব শাওমি ফোনের গ্লোবাল রম এর ফাস্টবুট ভার্সন পাবেন। আপনি গ্লোবালে যেতে চাইলে গ্লোবাল ফাস্টবুট রম এবং চায়না তে যেতে চাইলে চায়না ফাস্টবুট রম ডাউনলোড করুন।
  • ফাস্টবুট রমগুলো সাধারণত .tgz ফরম্যাটে ডাউনলোড হবে। একে ডিকমপ্রেস করে যে কোন ফোল্ডারে রাখুন। রম ডাউনলোডের ক্ষেত্রে অবশ্যই লেটেস্ট রম ডাউনলোড করুন। আপনার ফোনে থাকা রম এর পূর্বের ভার্সনের রম ইন্সটল করতে গেলে শাওমির এন্টিরোলব্যাক পলিসির জন্য আপনার ফোনটি হার্ড ব্রিক বা ডেড হয়ে যেতে পারে।
  • এবার মি ফ্ল্যাশ টুল ওপেন করুন। টুলটির হোমপেইজের একেবারে নিচের দিকে “ক্লিন অল” অপশনটি সিলেক্ট করে রাখুন। তবে ভুলেও “ক্লিন অল এন্ড লক” অপশনটি সিলেক্ট করবেন না। এখন এখন আপনার ফোনটি ইউএসবি ক্যাবল দিয়ে পিসিতে সংযুক্ত করে আগের মতো ফোনের ফাস্টবুট মোডে প্রবেশ করুন। টুলটিতে থাকা রিফ্রেশ বাটন চাপুন।
  • টুলটি আপনার ফোনকে রিকগনাইজ করতে পারলে টুলটির এড্রেস বারে সিলেক্ট বাটনে ক্লিক করে যে ফোল্ডারে রম এর ডেটা রেখেছেন সেটা দেখিয়ে দিন। এবার ফ্ল্যাশ বাটন চাপলেই আপনার ফোনে রম ইন্সটল হওয়া শুরু হবে। কয়েক মিনিট সময় লাগতে পারে পুরো প্রসেসটি সম্পন্ন হতে।

এবার আপনার ফোনটি নতুন ইন্সটল করা গ্লোবাল বা চায়না রমে বুট হবে। নতুন ফোন কেনার পর যেমন সেটআপ স্ক্রিন আসে, ঐরকম সেটআপ স্ক্রিন দেখতে পাবেন। ফ্ল্যাশ হওয়ার সাথে সাথে আপনার ফোনের সব ডেটাও মুছে গিয়েছে।

আর এভাবেই আপনি সফলভাবে চায়না রম থেকে গ্লোবাল কিংবা গ্লোবাল রম থেকে চায়না রমে যেতে পারবেন।

আরো পড়ুনঃ

About Begiz

Check Also

খুব সহজেই আপনার এনড্রয়েড মোবাইলকে যেভাবে আপডেট করবেন

আসসালাম আলাইকুম বন্ধুরা আশা করি সবাই ভালো আছেন। স্মার্টফোন দীর্ঘদিন ব্যবহারে স্লো হয়ে যায়। এছাড়া …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: